জার্নাল ডেস্ক
11 February 2020
  • No Comments

    দলীয় ষড়যন্ত্রে ভালুকা ছাত্রদলের কর্মীসভা বানচালের অভিযোগ !

    নিজস্ব প্রিতেবদক:
    দলীয় ষড়যন্ত্রে ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলা, পৌর ও কলেজ ছাত্রদলের ৩টি ইউনিটের পূর্বনির্ধারিত কর্মীসভা বানচালের অভিযোগ উঠেছে। এনিয়ে খোদ ছাত্রদল নেতা-কর্মীদের ভেতরে-বাইরে মিশ্র- প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।
    ছাত্রদল নেতা-কর্মীদের অভিযোগ, দলের ভেতরে ঘাপটি মেরে থাকা ভালুকা বিএনপির একটি বিশেষ মহলের ইশারায় সংগঠনের দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত নীতিনির্ধারকরা প্রভাবিত হয়ে যথা সময়ে সভাস্থলে উপস্থিত না হয়ে পরিকল্পিত ভাবে কর্মীসভা বানচাল করেছেন। যা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দেওয়া দ্বায়িত্ব অবহেলার শামিল।
    ভালুকা উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি উছমান গনি মল্লিক মাখন ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক রকিবুল হাসান রাসেল জানান, গত ১০ফেব্রুয়ারী সোমবার বিকাল ৩টায় ভালুকা উপজেলা, পৌর ও কলেজ ছাত্রদলের কর্মীসভার সময় নির্ধারণ করা হয়। পরে পুলিশের অনুমতি চেয়ে স্থানীয় ছাত্রদল নেতারা ভালুকা থানা পুলিশের কাছে লিখিত আবেদন করেন। কিন্তু ৯ ফেব্রুয়ারী রাতে হঠাৎ করেই অচেনা কোন এক ব্যক্তি ছাত্রদল নেতা পরিচয়ে একই সময়ে অন্যস্থানে ছাত্রদলের কর্মীসভার জন্য অনুমতি চেয়ে আবেদন করলে পুলিশ দুইগ্রুপের বিরোধীতার কারণে অনুমতি দেইনি।
    ছাত্রনেতাদের অভিযোগ, বিষয়টি কর্মীসভার দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত নীতিনির্ধারকদের সাথে আলোচনা করে ওই কর্মীসভাটি ময়মনসিংহ নগরীর দক্ষিণ জেলা বিএনপির কার্যালয়ে করার সিদ্ধান্ত নিয়ে বিকাল ৪টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত প্রশাসনের লিখিত অনুমতি নেয়া হয়। কিন্তু যথা সময়ে ভালুকা উপজেলা, পৌর ও কলেজ ছাত্রদলের কয়েক শত নেতাকর্মী সভাস্থলে উপস্থিত থাকলেও রহস্যজনক কারণে দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা ছিলেন অনুপস্থিত। তাদের দাবি, ভালুকা বিএনপির একটি বিশেষ মহলের ইশারায় জেলা ছাত্রদলের একটি পক্ষের দ্বারা কেন্দ্রীয় নেতারা প্রভাবিত হয়ে পরিকল্পিত ভাবে কর্মীসভা বানচাল করেছেন। এতে সংগঠনের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে।
    সূত্র জানায়, কর্মীসভার প্রধান অতিথি ছিলেন কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহ-সভাপতি ও ময়মনসিংহ বিভাগের টিম প্রধান মাজেদুল ইসলাম রুমন। এতে প্রধান বক্তা ছিলেন কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের যুগ্ম-সাধারণ সস্পাদক নিজাম উদ্দিন রিপন।
    তবে অভিযোগ ভিত্তিহীন দাবি করেছেন কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহ-সভাপতি ও ময়মনসিংহ বিভাগের টিম প্রধান মাজেদুল ইসলাম রুমন। তিনি বলেন, জেলার নেতারা জানিয়েছেন ভালুকা ছাত্রদলের কর্মীসভায় এক পক্ষ সভাস্থল দখল করে রাখলেও অন্য পক্ষ ছিল অনুপস্থিত। তবুও আমি সন্ধ্যার পর ত্রিশাল ছাত্রদলের কর্মীসভা শেষ করে সভাস্থলে এসেছিলাম। কিন্তু পুলিশি ঝামেলায় সভা করা সম্ভব হয়নি। তবে খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে আলোচনা করে ভালুকা ছাত্রদলের কর্মীসভা সম্পুন্ন করা হবে।

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *