ময়মনসিংহে কৃষক দলের মনিটরিং সভায় অনিয়মের অভিযোগ !

প্রকাশিত: ৬:৩১ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক:
ময়মনসিংহে জাতীয়তাবাদী কৃষকদলের কেন্দ্রীয় মনিটরিং সভায় জেলা ও ইউনিট কমিটি গঠনে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। সোমবার সকাল ১১টা থেকে থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত ময়মনসিংহ বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে জেলা দক্ষিণ ও উত্তর কৃষকদলের সাথে কেন্দ্রীয় মনিটরিং কমিটির মতবিনিময় সভায় এ অভিযোগ উঠে।
সভায় দক্ষিণ কৃষকদলের নেতা-কর্মীরা জানান, ২০১৯ সালের ২৭ জুন ৮০ সদস্য বিশিষ্ট জেলা দক্ষিণ কৃষকদলের একটি আহবায়ক কমিটি গঠিত হয়। একই বছরের ৪ সেপ্টেম্বর কমিটি আরো বর্ধিত করে ১০১ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটির চূড়ান্ত অনুমোদন দেন কেন্দ্রীয় কৃষকদল।
এ সময় দক্ষিণ জেলা কৃষকদলের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক মাসুদ তালুকদার মনিটরিং টিমকে জানান, জেলা কমিটি গঠনের পর গফরগাঁও উপজেলা, পৌর ও পাগলা থানা কমিটি আহবায়ক একক ভাবে অনুমোদন দিয়েছেন। যা সাংগঠনিক ভাবে অবৈধ। পরে আমিও সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক হিসেবে একই ইউনিটগুলোতে পাল্টা আরো ৩টি কমিটি অনুমোদন দিয়েছি। ফলে ওই ৩টি ইউনিটে কৃষকদলের এখন মোট কমিটি ৬টি। এছাড়াও জেলা কমিটি গঠনে বেশ কিছু অনিয়ম রয়েছে বলে দাবি করেছেন মাসুদ তালুকদার। তিনি আরো জানান, ওই কমিটিতে বাদ পড়েছেন জেলা ও উপজেলার যোগ্য নেতা-কর্মীরাও।
তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন সংগঠনের আহবায়ক মো: সাদেকুর রহমান। তিনি বলেন, কমিটি গঠনের সভায় সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ককে দফায় দফায় বলা হয়েছে। তখন তিনি ব্যস্ততা দেখিয়ে উপস্থিত না হলেও কমিটির পক্ষে সম্মতি দিয়েছিলেন। ওই সময় কেন্দ্রীয় নির্দেশ মেনে উপজেলা বিএনপি সভাপতি ও জেলা কৃষক দলের ৫জন যুগ্ম আহবায়কের সুপারিশক্রমে ইউনিট কমিটিগুলো অনুমোদন দেয়া হয়েছে। তবে এখন তিনি কমিটিকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য উল্টো কথা বলছেন। বরং তাঁর অনুমোদিত কমিটি অবৈধ এবং সংগঠনের ভাবমূর্তির জন্য ক্ষতিকর।
একই অবস্থা জেলা উত্তর কৃষকদলের। ২০১৯ সালের ৬ জুন অ্যাড.আবুল বাসার আকন্দকে আহবায়ক করে আরো ৬ জনকে যুগ্ম আহবায়ক করে ৪৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। কিন্তু কমিটি গঠনের পর থেকেই এক নেতার ক্যারিশমা দিয়েই চলছে ওই আহবায়ক কমিটি। কারণ কমিটির যুগ্ম আহবায়ক ফয়সল আমীন খান পাঠান ডায়মন্ড ও প্রফেসর মোফাজ্জল সংগঠনের কর্মকান্ডে সম্পুন্ন নিস্ক্রিয় এবং অনুপস্থিত। ফলে অস্থিত্ব সংকটের মধ্য দিয়েই জেলা উত্তর কৃষকদলের অবস্থা এখন হ-য-ব-র-ল। এমন অভিযোগ জেলা উত্তর কৃষকদলের নেতা-কর্মীদের।
সভায় জেলা উত্তর বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক আহাম্মেদ তায়েবুর রহমান হিরন মনিটরিং টিমের কাছে অভিযোগ করে বলেন, সম্মেলন ছাড়াই মনগড়া ভাবে গৌরীপুর উপজেলা কমিটি গঠন করা হয়েছে। ওই কমিটিতে যাদের নেতৃত্ব দেয়া হয়েছে তারা র্দীঘ সময় ধরে রাজনীতিতে নিস্ক্রিয় এবং পদধারী অনেকই কৃষকদল নেতা-কর্মীদের কাছে অপরিচিত।
এসব বিষয়ে কৃষক দলের কেন্দ্রীয় মনিটরিং টিমের প্রধান সাবেক উপমন্ত্রী মো: সিরাজুল হক বলেন, দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশেই কৃষক দল মনিটরিং হচ্ছে। কমিটিগুলোর সাংগঠনিক অবস্থা এবং অভিযোগ সংক্রান্ত বিষয়ে রির্পোট তৈরী করা হবে। যাতে করে সংগঠন এবং দলকে আরো বেশি শক্তিশালী করা যায়।
সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও কৃষকদলের মনিটরিং কমিটির সদস্য নূরজাহান ইয়াসমীন, মাহাবুবুর রহমান হারিছ, অ্যাড.কামরুল ইসলাম সজল, মামুন হাসান, রহিমা শিকদার, দক্ষিণ জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যাপক একেএম শফিকুল ইসলাম, সাধারন সম্পাদক আবু ওয়াহাব আকন্দ, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক শেখ আমজাদ আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক আলমগীর মাহমুদ আলম, জেলা উত্তর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক মোতাহার হোসেন তালুকদার প্রমূখ।