জার্নাল ডেস্ক
2 September 2019
  • No Comments

    ঈশ্বরগঞ্জে সুদের ফাঁদে ফেলে বৃদ্ধা নারীর সম্পদ দখল’ পুলিশ সুপার বরাবরে স্মারকলিপি

    নিজস্ব প্রতিবেদক:
    ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে সুদের ফাঁদে ফেলে এক অসহায় বৃদ্ধ নারীর বসত ঘর ও জমি জবর দখল করে নিয়েছেন তারুন্দিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন সম্পাদক এনামুল হক। সোমবার দুপুরে এ ঘটনার বিচার দাবি করে জেলা পুলিশ সুপার বরাবরে স্মারকলিপি দিয়েছেন ভুক্তভোগী ছাহারা খাতুন(৮০) ও প্রতিবাদী গ্রামবাসী।
    লিখিত অভিযোগে জানা যায়, পরিবারের অগোচরে ভুক্তভোগী ছাহারা খাতুনের পুত্র ইদ্রিস মিয়া(৩০)কে কিছুদিন আগে ৬০ হাজার টাকা সুদে দেয় যুবলীগ নেতা এনামুল। বর্তমানে ওই টাকার সুদ বাবদ ৩ লাখ ৫৫ হাজার টাকা দাবি করে ইদ্রিস মিয়ার কাছ থেকে জোরপূর্বক এনামুল তাঁর এক নিকট আত্মীয়ের নামে সাড়ে পনের শতাংশ জমি রেজিষ্ট্রে দলিল করে নেয়। কিন্তু একই দাগে ছাহারা খাতুনের নামে ৫ শতাংশ জমির উপর ৪২ হাত লম্বা একটি হাফ বিল্ডিং টিনের বসত ঘর রয়েছে। বিগত প্রায় এক মাস আগে যুবলীগ নেতা এনামুলের নেতৃত্বে স্থানীয় সাঈদ, মোতালিব, ওমর ফারুক, হাবিকুল, হারুন, কাদির ও রুহুল আমীন সন্ত্রাসী কায়দায় ওই বৃদ্ধ নারীকে মারধর করে ঘর থেকে বের করে দিয়ে বসত ঘরে তালা ঝুলিয়ে দেয়।
    স্থানীয় বাবুল মিয়া জানান, ঘটনাটি ঈশ্বরগঞ্জ থানা পুলিশকে লিখিত ভাবে জানালেও পুলিশ এখন পর্যন্ত মামলা নেয়নি। তবে গত ৩১ আগষ্ট পুলিশ এসে আমার বসত ঘরের তালা খুলে দিয়েছে।
    প্রতিবেশী আজিজ জানান, ঘটনাটিকে ভিন্ন খাতে প্রভাবিত করতে ভুক্তভোগী নারীসহ ৯জনকে আসামী করে আদালতে মিথ্যা চাঁদাবাজী মামলা দায়ের করেছে ওই যুবলীগ নেতা। স্থানীয়রা এ ঘটনার প্রতিবাদ করায় তাদেরকেও চাঁদাবাজী মামলায় আসামী করা হয়েছে।
    ভুক্তভোগী নারীর দেবর চুন্নু মিয়া জানান, ওই যুবলীগ নেতার অত্যাচারে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ। জুয়ার বোড বসানো, জমি দখল আর সুদ ব্যবসা তার নিত্যদিনের কাজ।
    ভুক্তভোগী রোজীনা খাতুন জানান, যুবলীগ নেতা আমাদেরকে বসত বাড়ী ও জমি ছেড়ে দিতে হুমকি দিচ্ছে। না হলে জানে মেরে ফেলার ভয় দেখাচ্ছে।
    তবে এসব বিষয়ে জানতে একাধিকবার তারুন্দিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন সম্পাদক এনামুল হকের মুঠোফোনে যোগাযোগ করেও তাঁর বক্তব্য জানা যায়নি।

    ময়মনসিহ জেলা পুলিশ সুপার শাহ আবিদ স্বারকলিপি প্রাপ্তির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।বিষয়টি খতিয়ে দেখার পর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান।

    এবিষয়ে সার্কেল পুলিশ সুপার শাকের হোসেন সিদ্দিকী বলেন, অভিযোগ দায়ের হয়েছে বলে শুনেছি। তবে অফিসিয়ালি নির্দেশ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *