জার্নাল ডেস্ক
29 November 2020
  • No Comments

    সরিষাবাড়ী নিখোঁজ ৩ জোয়ারীর তিন দিন পর নদী থেকে লাশ উদ্ধার

    সোলায়মান হোসেন হরেক,সরিষাবাড়ী:

    সরিষাবাড়ী জোয়ার আসর থেকে নিখোঁজ ৩ জোয়ারী লাশ যমুনা নদী থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার সকাল ১১টার দিকে যমুনা নদীর পৃথক স্থানে ভেসে উঠা ৩টি লাশ উদ্ধার করা হয়।

    বৃহস্পতিবার রাতে জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার পিংনা ইউনিয়নের চর বাশুরিয়া এলাকার যমুনা নদীর দুর্ঘম চরাঞ্চলে জেগে ওঠা বালুচরে এ নিখোঁজের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দুই পুলিশকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

    স্থানীয় ও নিহতদের পরিবার সূত্রে জানা যায়,জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার পিংনা ইউনিয়নের চর বাশুরিয়া এলাকার যমুনা নদীর দুর্ঘম চরাঞ্চলে জেগে ওঠা বালুর তীরে দীর্ঘদিন ধরে জুয়ার আসর চালিয়ে আসছিল। জোয়ারীদের সাথে তারাকান্দি পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের ইনচার্জ মুহাম্মদ তরিকুল ইসলামের গোপন আতাতে প্রতিরাতে মোটা অঙ্কের মাসোহারা নিয়ে জোয়া চালিয়ে আসছিল। তিন জেলার সিমান্তবর্তী জামালপুর, সিরাজগঞ্জ ও টাঙ্গাইলের বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রায় শতাধিক জুয়ারি প্রতিদিন দুপুর থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত কোটি টাকার জুয়া খেলার আসর বসতো। জুয়ার আসরে আধিপত্য বিস্তার ও টাকার ভাগ-বাটোয়ারাকে কেন্দ্র করে গত বৃহষ্পতিবার রাতে জুয়ারিদের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষে প্রায় ১০ জন আহত হয়। এদেরমধ্যে ঘটনাস্থলেই তিন জুয়ারি নিখোঁজ হয়ে যায়। নিখোঁজ জুয়ারিরা হলো- সরিষাবাড়ী উপজেলার পোগলদিঘা ইউনিয়নের পাখিমারা গ্রামের শামছুল হকের ছেলে ছানোয়ার হোসেন ছানু (৪০), পার্শ্ববর্তী টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার শাখারিয়া গ্রামের মৃত জমসের খাঁনের ছেলে হাফিজুর রহমান খাঁন (৪৫) ও ভুয়াপুর উপজেলার গোবিন্দাসী গ্রামের বারেক মন্ডলের ছেলে ফজলুল হক ফজল মিয়া (৪০)। এছাড়া পিংনা নরপাড়া গ্রামের বাহেছ আকন্দের ছেলে জুয়ার আসরের সর্দার আব্দুল মান্নান সরকারকে(৫২) গুরুতর জখম অবস্থায় ঢাকায় একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিখোঁজ ব্যাক্তিদের খোঁজ না পাওয়ায় শুক্রবার তারাকান্দ্রি পুলিশ ফাড়িঁতে পৃথক তিনটি জিডি করে তাদের পরিবারের লোকজন। এ ঘটনায় শনিবার দুপুরে জামালপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) শিবলী সাদিকের নেতৃত্বে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল অভিযান চালিয়ে নিখোঁজদের সন্ধ্যান পায়নি। রোববার সকালে টাংগাইল জেলার ভুঁয়াপুর উপজেলার নলিন বাজার বাসিদখল চর এলাকার ও জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার পিংনা বাশুরিয়া এলাকার র্দুঘম বালুচরে জোয়ার আসর থেকে একটু অদুরে ফজলুল হক ফজল মিয়া ও ছানোয়ার হোসেন ছানুর লাশ যমুনা নদীতে ভাসমান অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় তারাকান্দি পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের উপ-পরিদর্শক ইউনুস আলী ও কনস্টেবল মনির উদ্দিনকে জামালপুর পুলিশ লাইনে প্রত্যাহার করা হয়েছে।
    এ ব্যাপারে সরিষাবাড়ী থানার ওসি (তদন্ত) রাশেদুল ইসলাম জানান, ‘জুয়ার আসরে সংঘর্ষের ঘটনায় নিখোঁজ তিনজনের লাশ যমুনা নদী থেকে উদ্ধার হয়েছে। জোয়ার আসরের সাথে সম্পৃক্ত সন্ধেহে এসআই ইউনুস আলী ও পুলিশ সদস্য মনির উদ্দিনকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *