ময়মনসিংহে ডাঃ শুভ বিদ্যালয়টি পুনঃস্থাপনের দাবীতে মানববন্ধন

প্রকাশিত: ৬:৪৭ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৮, ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক :

শনিবার ময়মনসিংহ মহানগরের প্রাণকেন্দ্র গাঙিনাপাড় ট্রাফিক মোড় সংলগ্ন ফিরোজ জাহাঙ্গীর চত্বরে ডাঃ মুশফিকুর রহমান শুভ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পুনরায় চালু করার দাবিতে ৭ ও ৮ নং ওয়ার্ড মহানগর আওয়ামীলীগ, সকল সহযোগী সংগঠন ও এলাকাবাসীর উদ্যোগে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
মানববন্ধনে অংশগ্রহন করেন ময়মনসিংহ মহানগর আওয়ামীলীগ সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হোসাইন জাহাঙ্গীর বাবু, মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা সালেমা খাতুন সিদ্দিকা জেসমিন, সদস্য সঞ্জিব সরকার, মহানগর শ্রমিক লীগের যুগ্ম আহবায়ক আলহাজ শামছুল আলম, জেলা যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য তপন দে, ৭ নং ওয়ার্ড মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ হাফিজ, ৮ নং ওয়ার্ড মহানগর আওয়ামীলীগ এর সহ সভাপতি নির্মল নন্দী, সহ সভাপতি দিলীপ ধর, সাধারণ সম্পাদক পবিত্র রঞ্জন রায়, আওয়ামীলীগ নেতা সুমন ভৌমিক, সাংগঠনিক সম্পাদক দিলীপ রায়, শিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক সুমন দে, সদস্য রিপন দাস, প্রচার সম্পাদক রতন নাগ, সদস্য রবি চৌধুরীসহ প্রমুখ।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন আমরা আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে বলছি না। কিন্তু মেয়র ইকরামুল হক টিটু চাইলে এই জমিটি স্কুলকে লীজ দেওয়ার ব্যবস্থা করতে পারতেন। উনি তা না করে আদালতের রায় হওয়ার ৩দিনের মধ্যে তড়িঘড়ি করে বুলডোজার দিয়ে স্কুলটিকে গুড়িয়ে দেন। এমনকি স্কুলের আসবাবপত্র পর্যন্ত নিয়ে যাওয়া হয়।
ডাঃ মুশফিকুর রহমান শুভ বালিকা বিদ্যালয় গুড়িয়ে দিয়ে রাজনৈতিক ফায়দা লুটার চেষ্টা করবেন না। এটি একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান । ২৬০ জন শিক্ষার্থীর ভবিষ্যৎ নিয়ে ছিনিমিনি খেলবেন না।
ময়মসিংহ সিটি কর্পোরেশনের বহু জায়গা বেদখল রয়েছে। অনেককে লীজও দিয়েছেন। আপনি ইচ্ছা করলে বিদ্যালয়টির জমি লীজ দিয়ে বিদ্যালয়টি পুনঃস্থাপন করতে পারেন। মানবতায় আসেন, হিংসাত্মক রাজনীতিতে নয়।
ডাঃ শুভ উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়টি ময়লা আবর্জনার স্তুপের উপর নির্মিত হয়েছিল। সেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে এসব ময়লা আবর্জনা আমরা এলাকাবাসী মিলে নিজ হাতে পরিস্কার করে নিজের অর্থায়নে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করি। এর আসপাশে মশিকের জমি বিভিন্ন ব্যবসায়ীদের নাম মাত্র লীজ দিয়ে প্রচুর টাকা কামিয়েছেন। সরকারী খাতে এ টাকা জমা হয়েছে কি-না জানা নেই। এখনও সিটি কর্পোরেশনের জমি বিভিন্ন স্থানে বেদখল হয়ে রয়েছে। সেগুলো মেয়র নিজ দখলে নেওয়ার কোন ব্যবস্থা না করে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুড়িয়ে দিয়ে জমি দখলে নেয়া প্রতিহিংসা নয় কি? মেয়র সাহেব সরকারী জমি দখল করে নিজের মায়ের নামে স্কুল দিয়েছেন। সেখানে আপনার নীতি, সততা ও আদর্শ কোথায় রেখেছেন?