নান্দাইলে ১১ বছরের কন্যা শিশুর বিয়ে

প্রকাশিত: ৭:২৩ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৫, ২০২০

মজিবুর রহমান ফয়সাল, নান্দাইল:

হাতে মেহেদি, পড়নে লাল শাড়ী, মাথায় গোমটা দিয়ে বসে আছে কনে। পাশেই বর সেজে বসে আছে এক কিশোর। আজ শনিবার সকালে এমন দৃশ্য চোঁখে পড়ে নান্দাইল মডেল থানায়। পুলিশ জানায়, শুক্রবার গভীর রাতে ৯৯৯-এ ফোন পেয়ে অপ্রাপ্ত বয়স্ক বর-কনেকে আটক করে আনা হয়েছে। দুপুরে বিয়ে নিবন্ধন করাবে না মর্মে বর ও কনের বাবা মুচলেখা দিয়ে ছাড়া পায়।

জানা গেছে, উপজেলার খরিয়া গ্রামের নবী হোসেনের কন্যা তাসলিমা আক্তারের (১১) বিয়ে ঠিক হয় ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার গালাহার গ্রামের আব্দুল মন্নানের পুত্র নাঈমের (১৭) সাথে। নাঈম রাজমিস্ত্রির সহকারী হিসেবে কাজ করেন। যথারিতি বাল্যবিয়ের কারণে শুক্রবার রাত আটটার পর বর আসেন কনের বাড়িতে। গোপনে খাওয়া-দাওয়ার পর স্থানীয় এক হুজুর দিয়ে দোয়া পড়িয়ে বিয়ে কাজটি সম্পন্ন করা হয় গভীর রাতে। এ সময় ৯৯৯-এ ফোন পেয়ে নান্দাইল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বর-কনেকে আটক করে থানায় আনে। তখন কনেকে উঠিয়ে নেওয়ার প্রস্ততি চলছিল। বাকি রাত থানায় ডিউটি অফিসারের কক্ষে অবস্থানের পর শনিবার দুপুরে ইউএনও কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয় তাদের। সেখান থেকে বিয়ে নিবন্ধন করাবে না মর্মে বর ও কনের বাবা মুচলেখা দিয়ে ছাড়া পায়।

এই বিষয়ে নান্দাইল উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) এরশাদ উদ্দিন বলেন, ‘বাচ্চটা একবারে ছোট, তাই জরিমানা করি নাই। উভয় পক্ষের অভিভাবক প্রাপ্ত বয়স না হওয়া পর্যন্ত তাদের বিয়ে নিবন্ধন করা হবেনা না মর্মে মুচলেখা দিলে স্থানীয় দুইজন রাজনৈতিক নেতার জিম্মায় দিয়েছি। আর যে হুজুর বিয়ে পড়িয়েছিল তাকে পাওয়া যায়নি।’

ছবি সংযুক্ত-২