সরিষাবাড়ীতে অন্তঃস্বত্তা গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু

প্রকাশিত: ৬:৪৬ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১০, ২০২০

সরিষাবাড়ী প্রতিনিধি :

জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে সনেকা বেগম নামে সাত মাসের অন্তঃস্বত্তা গৃহবধূর ফাঁসিতে ঝুলে রহস্যজনক মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। রোববার গভীর রাতে উপজেলার সাতপোয়া ইউনিয়নের চর আদ্রা এ ঘটনা ঘটে। সোমবার দুপুরে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার সাতপোয়া ইউনিয়নের চর আদ্রা গ্রামের মুহাম্মদ আদিল মিয়ার ছেলে সোহেল মিয়ার সাথে প্রায় দুই বছর পূর্বে একই ইউনিয়নের চর সরিষাবাড়ী গ্রামের ইনতাজ আলীর মেয়ে সনেকার বিয়ে হয়। বিয়ের সময় যৌতুক হিসেবে টাকা ও স্বর্ণে গহণা দেয়ার কথা ছিল। এ নিয়ে গৃহবধু সনেকা বেগম ও স্বামী সোহেল মিয়ার মধ্যে বিয়ের পর থেকেই তাদের দুজনের কলহ বিরোধ চলে আসছিল। গৃহবধূ সনেকা বেগমের উপর মানসিক নির্যাতন চালিয়ে আসছিল স্বামী সোহেল মিয়াসহ তার পরিবারের সদস্যরা। এ ঘটনায় গত এক মাস পূর্বে সনেকা বেগম তার বাবার বাড়ী থেকে যৌতুকের ৭০ হাজার টাকা ও এক ভরি স্বর্ণের গহণা এনে দেন স্বামীকে। ইতোমধ্যে সনেকা বেগম সাত মাসের অন্তঃস্বত্তা হয়ে পড়েন। রোববার সন্ধায় স্ত্রী সনেকা বেগমকে ঘরে একা রেখে বসতবাড়ী সামনে বিলে মাছ ধরতে যান স্বামী সোহেল মিয়া। সোমবার সকালে সোহেল মিয়ার পরিবারের লোকজন প্রতিবেশিদে জানায় সনেকা ফাঁসিতে ঝুলে আত্মহত্যা করেছে। প্রতিবেশীদের ধারনা সনেকা বেগমকে স্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। যৌতুকের দাবি পুরণের পরেও অন্তঃস্বত্তা গৃহবধুর আত্মহত্যা ? এ ঘটনা নিয়ে এলাকার মানুষের মুখে মুখে সন্ধেহের অভিযোগ উঠেছে। গৃহবধূর সনেকা বেগমের ছোট বোন সোমা আক্তার অভিযোগ করে বলেন, রোববার রাতে সনেকার ব্যাবহৃত মোবাইল থেকে আমাদের ফোন রাত ১১টার দিকে । ফোন করে রাতেই সনেকা বেগমের সাথে দেখা করতে বলে। সেই সময় সনেকা কাঁদতে কাঁদতে বলে তোমরা সবাই আস। আমাকে দেখে যাও। বন্যার পানি যাতায়াত রাস্তা ভালো না তাই রাতে আর কেউ আসতে পারি নাই। সকালে এসে মেঝেতে শুয়ানো বোনের লাশ দেখতে পাই। তারা বলছে ফাঁসি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। সাত মাসের অন্তঃস্বত্তা বোন আমার আত্ম হত্যা করে নাই তাকে মেরে মেরে ফেলা হয়েছে।
সোহেল মিয়া জানায়, মাছ ধরতে বিলে গিয়ে ছিলাম এসে দেখি ফাঁিসতে ঝুলে আছে । পরে থাকে নামিয়ে ঘরের মেঝেতে রাখছি। কেন আত্ম হত্যা করেছে তার কোন জবাব তিনি দেননি।
সরিষাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ ফজলুল করীম জানান, সনেকা বেগম নামের এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে। ময়না তদন্তের পর জানা যাবে তার মৃত্যুর কারণ।