জার্নাল ডেস্ক
5 August 2020
  • No Comments

    তথ্য প্রতিমন্ত্রীকে নিয়ে কটুক্তি: মেয়রের বিরুদ্ধে মামলা

    মো: সোলায়মান হোসেন হরেক:

    জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডাক্তার মুরাদ হাসান এমপিকে নিয়ে ফেইজবুকে লাইফ কটুক্তিমূলক ভিডিও প্রচার করেন পৌর মেয়র রুকুনুজ্জামান। তথ্য প্রতিমন্ত্রীর বিরুদ্ধে মানহানীকর ফেইজবুকে ভিডিও লাইফে বক্তব্য প্রচার করায় থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে মেয়র রুকুনুজ্জামানের বিরুদ্ধে উপজেলা যুবলীগের সদস্য ছামিউল হক বাদি হয়ে মামলা দায়ের করেন।
    স্থানীয় ও মামলা সূত্রে জানা যায়, বিএনপি ডনার নামে পরিচিত রুকনুজ্জামান রোকন। তিনি ২০১৫ সালে ২৭ ফ্রেরুয়ারী সরিষাবাড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগে যোগদান করে। যোগদানের কিছু দিন পর উপজেলা পৌর আওয়ামীলীগের সহসভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পান রুকুনুজ্জামান রোকন। এর পর সদ্য যোগদানকারী ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর পৌর নির্বাচনে আ’লীগ দলীয় প্রার্থী মেয়র পদে নির্বাচিত হন রুকুনুজ্জামান রোকন। নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে পৌর পরিষদকে কুক্ষিগত করে একক আধিপত্য বিস্তার চালিয়ে আসছেন তিনি। ফলে অসন্তোষ দেখা দেয় সকল কাউন্সিলরসহ কর্মকর্তা কর্মচারিদের মধ্যে। একপর্যায় মেয়র রুকুনুজ্জামানের বিরুদ্ধে ঘুষ, দুর্নীতি, অনিয়ম, টেন্ডারবাজি, ক্ষমতার অপব্যবহারের প্রতিবাদি হয়ে উঠেন পৌর পরিষদ। আন্দোলনে নেমে আসেন ১২ জন কাউন্সিলর ও কর্মকর্তা কর্মচারিরা। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেন মেয়র রুকুনুজ্জামান। এ নিয়ে মেয়র রোকনের সাথে বিরোধ চরমে উঠে। আন্দোলন চলাকালে সম্প্রতি পৌর পরিষদে প্রবেশের চেষ্ঠা চালায় মেয়র ও তার বহিরাগত ক্যাডার বাহীনি নিয়ে। এ সময় পৌর কার্যালয় কাউন্সিল দের সাথে হাতাহাতি এবং সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে কয়েক জন কাউন্সিলর আহত হন। পরে ১লা মে(২০২০) কাউন্সিলররা ক্ষুব্ধ হয়ে দুর্নীতির অভিযোগে মেয়র রুকুনুজ্জামানকে অনাস্থা দেন। ওই দিন সন্ধ্যায় উপজেলা আ’লীগ, পৌর আ’লীগের সহসভাপতি মেয়র রুকুনুজ্জামানকে দল থেকে বহিস্কার করেন। এ সব ঘটনায় মেয়র রোকন স্থানীয় সংসদ তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডাক্তার মুরাদ হাসান এমপিকে সন্দেহে করে তার দিকে আঙ্গুল তুলছেন। এরপর থেকেই প্রতিমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ফেইজবুকে সমালোচনা করে আসছেন মেয়র। মেয়র রোকন প্রায়ই তথ্য প্রতিমন্ত্রীকে নিয়ে অসম্মানজনক স্ট্যাটাস দিয়ে আসছিল। হঠাৎ করে মঙ্গলবার রাত ৮টায় ‘মেয়র রুকন’ নামে ফেইজবুক আইডিতে ভিডিও লাইফ দেখার আহবান করে ফেইজবুকে এক স্ট্যাটাস দেন মেয়র। পরে ঠিক রাত ৮টার দিকে ফেইজবুক ভিডিও লাইফে এসে তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডাক্তার মুরাদ হাসান এমপির বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও চরিত্র নিয়ে আক্রমনাত্মক, অসম্মানজনক ও ভীতি প্রদর্শন,কটুক্তিমুলক বক্তব্য দেন মেয়র রুকুনুজ্জামান। ফেইজবুক ভিডিও লাইফে ২০ মিনিট মেয়রের এ বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রীর ভাবমূর্তি সম্মানহানিকর মনে করেন, উপজেলা দলীয় নেতাকর্মী, এবং সুশীল সমাজ ও উপজেলা সর্বস্তরের জনগন।
    থানার ভারপ্রাপ্ত (ওসি) আবু মোহাম্মদ ফজলুল করীম জানান, তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডাক্তার মুরাদ হাসান এমপির বিরুদ্ধে ফেইজবুকে ভিডিও লাইফে কটুক্তি বক্তব্য দেয়ায় মেয়রের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *