করোনাকালীন অনলাইন পাঠপদ্ধতির রোল মডেল ময়মনসিং

প্রকাশিত: ৩:৩৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ২১, ২০২০

মোঃ আমান উল্লাহ আকন্দ জাহাঙ্গীর:

সবকিছুই চলছিল ঠিকঠাক। হঠাৎ করোনা ভাইরাসের সংক্রামণে লন্ডভন্ড হয়ে পড়ে দেশের শিক্ষা কার্যক্রম। সংক্রমণ প্রতিরোধে চলতি বছরের বিগত ১৭ই মার্চ সরকারী ভাবে একযোগে বন্ধ ঘোষনা করা হয় দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। স্থবিরতা নেমে আসে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া কার্যক্রমে। দুঃশ্চিন্তার ভাঁজ পড়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবক মহলে।

এমন পরিস্থিতিতে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের পাঠ সম্পৃক্ত রাখতে বিষয়টি নিয়ে বিকল্প ভাবতে শুরু করেন ময়মনসিংহের জেলা প্রশাসক মো: মিজানুর রহমান ও জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো: রফিকুল ইসলাম। ফলশ্রুতিতে সরকারী বন্ধের ঠিক নয় দিনের মাথায় বিগত ২৬শে মার্চ থেকে অনলাইন পাঠ পদ্ধতিতে অল্প পরিসরে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করেন ময়মনসিংহ মাধ্যমিক শিক্ষা বিভাগ। এরপর ৩১শে মার্চ থেকে অনলাইন পাঠ পদ্ধতির কার্যক্রম শুরু করেন শিক্ষা মন্ত্রনালয়। ফলে করোনাকালীন অনলাইন পাঠ পদ্ধতির রোল মডেল এখন ময়মনসিংহ মাধ্যমিক শিক্ষা বিভাগ। এ কনসেপ্ট নিয়ে বর্তমানে সারা দেশে শুরু হয়েছে অনলাইন পাঠ কার্যক্রম।

জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্র জানায়, প্রথম দিকে এ কার্যক্রমে প্রযুক্তিগত নানা জটিলতায় শিক্ষক-শিক্ষার্থী মহলে ব্যাপক সাড়া ফেলতে না পারলেও দিনে দিনে এ কার্যক্রমের পরিধি বাড়তে শুরু করেছে। শিক্ষার্থীদের সরব অংশ গ্রহনে উপস্থিতিও বাড়ছে অনলাইন পাঠ কার্যক্রমে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, অনলাইন পাঠ কার্যক্রমে সকল পর্যায়ের শিক্ষকগণ প্রশিক্ষিত না থাকায় শুরুতেই বেশ বেগ পেতে হয়েছে। তবে ইতিমধ্যে একটি সমন্বিত রুটিনের মাধ্যমে জেলার ৭৭জন অভিজ্ঞ শিক্ষকদের একটি প্রশিক্ষিত টিম পর্যায়ক্রমে শ্রেণীভিত্তিক ক্লাস নিচ্ছেন নিয়মিত। সেই সাথে অনলাইন পদ্ধতির কার্যক্রমে অনভিজ্ঞ শিক্ষকদের ভার্চুয়াল অংশ গ্রহনে প্রশিক্ষণ চলছে নিয়মিত। জুম এ্যাপস, গুগুল মিথসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকের মাধ্যমে ময়মনসিংহ জেলার ১৩টি উপজেলায় চলছে এ কার্যক্রম।

জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্র আরো জানায়, জেলার মোট ৫৮৮টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ৩৩৮টি মাদ্রাসা স্বপ্রনোদিত এ কার্যক্রমের আওতাভুক্ত। তবে প্রযুক্তিগত অসুবিধার কারণে সকল প্রতিষ্ঠানে অনলাইন পাঠ কার্যক্রম চালু না হলেও ইতিমধ্যে প্রায় ৫০ ভাগ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অনলাইন পাঠ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন আছে। খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে বাকী ৫০ ভাগ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অনলাইন পাঠের আওতাভুক্ত করতে কারিগরি কাজের পাশাপাশি ওই সকল শিক্ষকদের এ পাঠ পদ্ধতির অনলাইন প্রশিক্ষণ চলছে।

ত্রিশাল উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ জিল্লুর রহমান আনাম জানান, গত ১৮ জুন থেকে উপজেলার ৫৩টি স্কুল ও ৪৬টি মাদ্রাসায় একযোগে ফেইসবুকের মাধ্যমে চলছে অনলাইন পাঠ কার্যক্রম। এর সাথে যুক্ত রয়েছে ৪০জন স্কুল শিক্ষক ও ৩০জন মাদ্রাসা শিক্ষক।

জেলার মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো: রফিকুল ইসলাম জানান, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যাওয়ায় শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা যেন পাঠ বিমুখ না হয়। সে বিষয়টি মাথায় রেখে জেলা প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্টদের সাথে সমন্বয়ের মাধ্যমে অনলাইন পাঠ কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। দেশে এ পদ্ধতিতে আমরাই প্রথম। তিনি আরো জানান, আমাদের এই কনসেপ্ট সর্ম্পকে অবগত হয়ে মাননীয় সচিব মহোদয় ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছেন। সেই সাথে এই কনসেপ্টের উপর প্রতিবেদন চাওয়া হয়েছে মন্ত্রনালয় থেকে। আমরা আশা করছি অনলাইন পাঠ পদ্ধতিতে শিক্ষার্থীরা করোনাকালীন ক্ষতি কিছুটা হলেও পুশিয়ে নিতে পারবে।

এবিষয়ে ময়মনসিংহের জেলা প্রশাসক মো: মিজানুর রহমান বলেন, বিগত ২৫মার্চ আইসিটি টির্চাস ফোরাম গঠনের মধ্য দিয়ে জেলা প্রশাসনের সার্বিক সহযোগীতায় অনলাইন পাঠ পদ্ধতি শুরু করা হয়েছিল। ইতিমধ্যে এ পদ্ধতির পাঠদান সারা দেশে ব্যাপক সাঁড়া ফেলেছে। আশা করছি এ কার্যক্রমের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা সুফল পাচ্ছে।