জার্নাল ডেস্ক
1 July 2020
  • No Comments

    ঈশ্বরগঞ্জ থানায় মামলার পর বাদীর পরিবারকে হুমকী

    হাবিবুর রহমান,ঈশ্বরগঞ্জ:

    ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ থানায় মামলা দিয়েও বিপাকে পড়েছে বাদীর পরিবার। গত ৩০জুন বাদী ছফির উদ্দিন এবিষয়ে অভিযোগ করেন।
    জানা যায়, উপজেলা রাজিবপুর ইউনিয়নের ভাটি চরনওপাড়া গ্রামে জমিজমা নিয়ে বিরোধে ১৩ এপ্রিল বেলা আনুমানিক ২টার দিকে ছফির উদ্দিনের ছেলে হানিফকে হত্যার উদ্দেশ্যে মাথায় আঘাত করে একই গ্রামের নজরুল ইসলাম গং। বিষয়টি নিয়ে ঈশ্বরগঞ্জ থানায় ১৪৩/৪৪৭/৩২৩/৩২৪/ ৩২৬/ ৩০৭/ ৩৫৪/ ৩৭৯/৫০৬ ধারায় ১৫ এপ্রিল একটি মামলা হয়। মামলা নং-১৪।
    ঘটনার পর থেকেই জামিন না নিয়ে প্রকাশ্যে বিবাদী নজরুল ইসলাম গংদের হরজুল ইসলাম, সুমন মিয়া, মাসুদ মিয়াসহ কয়েক জন নিয়মিত ভাবে বাদী পক্ষকে মামলা প্রত্যাহার করার জন্য বিভিন্ন ভাবে হুমকী দিয়ে আসছে। বিষয়টি ঈশ্বরগঞ্জ থানায় জিডি করতে চাইলে মামলা থাকায় জিডি নেওয়া হয়নি।
    এদিকে ওই ঘটনায় মারাত্মক আঘাত প্রাপ্ত হানিফের অবস্থা অবনতি হওয়ায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। দীর্ঘদিন হাসপাতালে চিকিৎসারপর গত ৪ জুন ঢাকা মেডিকেল কর্তৃপক্ষ হানিফকে ছাড়পত্র প্রদান করেন। হানিফের ডান চোখ নষ্ট হয়ে যাওয়ায় তার চোখের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এঘটনায় বাদী ছফির উদ্দিন, আল আমিন আঘাত প্রাপ্ত হয়ে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ্য হয়েছেন।
    এ ব্যাপারে বাদী ছফির উদ্দিন বলেন, আমি একজন অসহায় সাধারণ মানুষ, মামলা করার পর থেকে আমার সন্তানদের উপর বিবাদীরা হুমকী দিয়ে আসছে। বিবাদীরা প্রকাশ্যে ঘুরাফেরা করলেও পুলিশ তাদের আটক করতে পাড়ছে না।
    এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম বলেন, আমি ঢাকায় আছি। আপনারা আসামীদের ধরে থানায় খবর দিন।
    ঈশ্বরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মোখলেছুর রহমান আকন্দ বলেন, আসামীদের ধরার চেষ্টা চলছে। পুলিশ যাওয়ার পর আসামীদের আর পাওয়া যায়না। ##

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *