জামালপুর ব্রক্ষ্মপুত্রের তীর ঘেষা রাস্তাটি উদ্ভোধন হতে না হতেই ভাঙ্গন

প্রকাশিত: ৩:৪৩ অপরাহ্ণ, জুন ১৫, ২০২০

মিঠু আহমেদ, জামালপুর ॥ জামালপুর ও শেরপুর জেলার সীমান্ত ঘেষে একে বেকে বয়ে চলা ব্রক্ষপুত্র নদের তীর ঘেষে নির্মাণ করা হয়েছে দৃষ্টিনন্দন দর্শনীয় রাস্তা। ঠিকাধারী প্রতিষ্ঠান নি¤œমানের কাজ করায় রাস্তাটি উদ্ভোধন করতে না করতেই দেখা দিয়েছে বিভিন্ন স্থানে ভাঙ্গন। এসব ভাঙ্গনের কারণে যে কোন সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দূর্ঘটানা বলে জানিয়েছেন যানবাহন চালকরা।
জামালপুর এলজিইডি সুত্রে জানা যায়, জামালপুর শহরের ফৌজদারি মোড় হতে পুরাতন ফেরিঘাট পর্যন্ত ৩৮০০ মিটার রাস্তাটি নির্মাণ করতে ব্যয় ধরা হয়েছিল ৩০ কোটি টাকা। এ টাকায় রাস্তার নির্মাণ কাজ সম্পন্ন না হওয়ায় পরবর্তীতে জামালপুর পৌরসভার কাছ থেকে আরও অতিরিক্ত ৪ কোটি ৫ লাখ টাকা বরাদ্দ নেওয়া হলেও এখন পর্যন্ত রাস্তার সংস্কার কাজ শেষ হয়নি। তবে এলজিইডির দাবী ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মালিক ফারহান ও বাবুল কমিশনারকে বলবো দ্রুত সময়ের মধ্যে রাস্তার কাজ শেষ ও ভেঙ্গে যাওয়া রাস্তা যেন মেরামত করে দেওয়ার জন্য।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় রাস্তার দু’পার্শ্বের খুটির সাথে র‌্যালিং এখনও লাগানো হয়নি, রাস্তার বিভন্ন স্থানে ভেঙ্গে বড় বড় ঘর্তের সৃষ্টি হয়েছে, রাস্তার দুপার্শ্বে ঠিক ভাবে মাটি বা গাইড ওয়াল না দেওয়ায় ও নি¤œমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহারের ফলে রাস্তাটি বার বার ভেঙ্গে যাচ্ছে। আরও দেখা যায় ছোট ছোট পিলারগুলি ভেঙ্গে পড়ে গরীব মানুষের বাথরুমের উপর ভেঙ্গে পড়ে বাথরুম ও বাথরুমের পাইপ ভেঙ্গেগেছে। আবার কারও কারও ঘরের উপর ভেঙ্গে পড়েছে।
স্থানীয় কাজল রেখা বলেন, রাস্তার পিলার ভেঙ্গে আমার বাথরুমের পাইপ ভেঙ্গে যায়। আমি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মালিক ফারহান আহম্মেদ ও কমিশনার বাবুলের অফিসে কয়েক দিন গেলেও তারা আমাকে আশ্বাস দিলেও কোন কাজ করে দেয়নি। আমি একজন গরীব মানুষ আমি খুবই কষ্টে আছি।
স্থানীয় সোহেল রানাসহ আরও অনেকে বলেন, এই রাস্তাটির নি¤œমানের কাজ করায় বার বার ভেঙ্গে যাচ্ছে আর বার বার তারা মেরামত করছে। যা এককথায় বলা যায় দিনে ৭ বার করে ভাঙ্গে আর তিনবার করে মেরামত করছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মালিক বাবুল কশিনার ও ফারহান আহম্মেদ।
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম এমপি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ এবং দেশের মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের স্বপ্ন দেখেন। আর সেই স্বপ্নের বাস্তবায়ন করতে নিজেকে দেশের মানুষের জন্য উৎসর্গ করে দিয়েছেন। শেখ হাসিনার সেই স্বপ্নের সারথি হয়ে আমরাও দেশের মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছি। তার দেখানো স্বপ্নের পথধরেই জামালপুর জেলায় ৫০ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্পন আনতে পেরেছি এবং সেই উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। রাজনীতি করি জননেত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্ন বাস্তবায়ন আর তার মাধ্যমে জামালপুরের পিছিয়ে পড়া জনপদকে উন্নয়নের সড়কে জুড়ে দেওয়ার জন্য। তারই ধারাবাহিকতা জামালপুর শহরের বাইপাস সড়কের উদ্বোধন করা হয়েছে। এ রাস্তার যে কাজ গুলি বাকি রয়েছে বা বিভিন্ন স্থানে ভেঙ্গেগেছে সেটি দ্রুত সময়ের মধ্যে করে দেওয়া হবে। এ জন্যেই জামালপুর পৌরসভার কাছথেকে ৪ কোটি ৫০ লাখ টাকা বরাদ্দ নেওয়া হয়েছে।
জামালপুর এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী মোখলেছুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মালিকদের নোটিশ দেওয়া হয়েছে দ্রুত সময়ের মধ্যে রাস্তা মেরামত ও কাজ শেষ করা জন্য। যদি তারা দ্রুত কাজ না করে তাহলে বিভাগীয় পর্যায়ে তাদের বিরুদ্ধে সরকারী বিধান অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।